আর পারছি না, উঃ উঃ ভোদাটা মার এবার ammur

desi bangladeshi bhabhi

desi bangladeshi bhabhi

বাংলা  চটি  ,bangla porokiya chodon আমার বয়স তখন ১৬। উঠতি যৌবন। নিজেকে সামাল দিতে কস্ট হয়। এর মধ্যে আমাদের বাসা change করল। পাশের বাসায় থাকতো এক আন্টি। আন্টির বয়স বেশি না। ২৫ কি ২৬ হবে। ৬ বছর হইলো বিয়ে হয়েছে। একটা ছোট বাচ্চাও আছে। নাম অমি। আমি ছোট বেলা থেকেই অনেক মেধাবি ছিলাম। তাই আমাকে অনেকেই আদর করে অনেক কিছু খাওয়াত। ছোট বেলায় তো কোলে করে নিয়ে আদর করতো। যাই হোক ঐ বাসায় যাবার পর থেকেই আমার ঐ আন্টির উপর নজর পরে। খুব ইচ্ছা ছিল আন্টিকে নেংটা দেখব। কিন্তু কিভাবে তা বুঝে উঠতে পারিনা। যাই হোক আমার তখন এস এস সি পরিক্ষা। আন্টিকে সালাম করে আসলাম। আন্টিও খুশি হয়ে আমাকে ১০০ টাকা দিলেন। আমি পরিক্ষা দিলাম। পরিক্ষা ভালই হ্ল। আমি আন্টিকে মিস্টি খাওয়ালাম। আমাদের বাসার মাঝখানে একটা কমন দরজা ছিল। যেটা দিয়ে আমরা যাওয়া আসা করতে পারতাম। ওটা সবসময় খোলাই থাকত। আন্টির ফিগার টা ছিল দারুন। ফরসাও ছিল। এর মধ্যে আমি ইন্টারমিডিয়েটে ভর্তি হ্লাম। আন্টির husband টা ছিল অনেক বয়সি ৪৪ হবে। ঠিক মতন কিছু করতে পারত কিনা সন্দেহ আছে। যাই হোক, আমি ওনার বাচ্চার সাথে খেলার জন্যে মাঝে মাঝেই যেতাম তার বাসায়। 

এমনি একদিন তার বাসায় গেছি দুপুর বেলায়। যেয়ে দেখি আন্টি নাই। অমিকে জিজ্ঞাসা করলাম আন্টি কোথায়? ও বলল, আম্মু গোসল করতেগেছে। আমার শরীরের মধ্যে শিহরন বয়ে গেল। আন্টি নিশ্চ্য় নেংটা হয়ে তার দুদু আর যোনি সাফ করতেছে। হয়ত সাবান লাগাচ্ছে। আমি মনে মনে তাকে কল্পনা করতে লাগলাম। এইসব মনে করতে করতেই আমার লিঙ্গ শক্ত হয়ে গেল। ওকে জিজ্ঞাসা করলাম, কতক্ষণ আগে গেছেন। ও বলল, এইত, একটু আগে। এইবার আমার মনে একটু কবুদ্ধি আটল। আমি আস্তে আস্তে ওনার বাথরুমের দিকে গেলাম। যেতেই দেখি কাপর কাচার শব্দ। আমি বাথরুমের দরজার চারদিকে চোখ বুলালাম। দেখি একটা ছোট ফাক আছে। বাথরুমের বাইরের দিকে অন্ধকার এবং ভিতরের দিকে তো লাইট জালানো। তাই আমি দূরু দূরু বুকে দরজার ফাক দিয়ে তাকিয়ে থাকলাম। যা দেখলাম তাতে আমার বুকের হার্ট বিট গেল বেড়ে। দেখলাম আন্টি আধা নেংটা হয়ে কাপড় কাচতেছে। একটা ছোট টুলের উপর বসা, বসে ঈষৎ ঝুকে কাপড় ধুচ্ছে। ব্লাউজ খোলা, একটা পের্টিকোট পরা। আন্টির দুদুগুলো দেখে মনে হচ্ছিল পিছন থেকে জাপটে ধরি আর পকাপক টিপতে থাকি। কিন্তু কেমনে করব। মাঝখানে তো একটা দরজা আছে। তাই আমি আমার ট্রাউজারের উপর দিয়ে ধনটা নাড়তে থাকলাম আর দেখতে থাকলাম। হঠাৎ আমার মনে হল এইটা তো অনেক বেশি risky হয়ে যাচ্ছে। কারন অমি তো পাশের রুমে আছে। ও যদি বের হয়ে যায় আর আমাকে দেখে ফেলে তাইলে তো পুরো মজাটাই মাটি হয়ে যাবে। উল্টা মাইর খাওয়ার chance আছে। তাই প্লান করে অমিকে বললাম যে বাইরে যেয়ে দুটা চকলেট কিনে আনতে, ও চলে গেল। এইবার আমি আয়েশ করে দেখা শুরু করলাম। ফুটোতে আবার চোখ দিয়ে দেখি আন্টি already কাপড় ধুয়ে ফেলছে। কাপড় গুলা ধুয়ে একটা বালতির মধ্যে রাখছে। এবং গোসলের প্রস্তুতি করতেছে। যাই হোক আন্টি শরীরে একটু একটু করে পানি নেওয়া শুরু করল। আমি তার সারা শরীরের সব জায়গা দেখতে লাগলাম। দাড়ান অবস্থায় দেখলাম, আন্টির দুদুগুলা যেন আমার দিকে তাকিয়ে আছে। আন্টির ডান হাতে মগ এবং বাম হাতে দুদু কচলান। পানি ঢালেন আর দুদু কচলান আর আমি কচলাই আমার ধোন। এরপর তিনি গায়ে সাবান মাখা শুরু করলেন আর আমি দেখতে থাকলাম। আমার বুকের ঢিপঢিপানি বাড়তে থাকলো। আমি কি করব বুঝে উঠতে পারতেছিলাম না। এর মধ্যে আন্টি তার পের্টিকোট খুলে ফেললেন। আমার সামনে তার নাভিটা একদম স্পস্ট হয়ে উঠল। কিন্তু নিচে আর দেখে পারতেছিলাম না। খুব ইচ্ছা ছিল তার যোনি দেখব। আমি যেহেতু কখন বয়স্ক মেয়েদের যোনি দেখিনাই, তাই ওইটা দেখতে বেশি ইচ্ছা করতেছিল। খুব চেস্টা করলাম। কিন্তু বিধি বাম। পরে আর কি করব। আন্টি কিছুতেই দূরে গেলেন না। আমিও খুব একটা দেখতে পাড়লাম না। যতটুকু দেখলাম তা হল আন্টির তলপেট আর আন্টির পাছার উপরের অংশ। যাই হোক আর বেশিক্ষণ থাকতে সাহস হচ্ছিল না। তাই সরে আসলাম। আন্টির রুমে যেয়ে বসে থাকলাম।
একটু পরে অমি চলে আসল। ওর কাছ থেকে চকলেট নিয়ে খেতে থাকলাম। এরপর একটা কাজ করলাম। ওকে বললাম, চল আমরা ব্যাট বল খেলি। ও রাজি হল। ও আর আমি যেয়ে ওদের বাথরুমের পাশের বারান্দায় খেলতে লাগলাম। ২ ওভার ও হয়নি এর মধ্যেই আন্টি বেরিয়ে আসলেন। দেখলাম আন্টির নিচে অন্য একটা পের্টিকোট। উপরে খোলা বুক। মাঝারি সাইজের খাড়া দুদু। একদম খাড়া। আমি উনাকে দেখিইনি এমন ভাবটা করে খেলতে লাগলাম। উনিও আমাকে দেখেও তেমন কিছুই না করে এক হাতে বালতি আর আর এক হাতে শাড়িটা নিয়ে আমার পাশ দিয়ে অন্য একটা বারান্দায় গেলেন। আমার পাশ দিয়ে যাবার সময় আমি আড়চোখে তার দুদু দুইটা খুব কাছ থেকে দেখে নিলাম। পাশ কাটানর পর দেখলাম উনার পাছাটা। পাছার খাজে পের্টিকোট ঢুকে গেছে। ইচ্ছে হচ্ছিল পাছার খাজে আঙ্গুল ঢুকায়ে দেই। নরম মসৃণ আর ভেজা পিঠ দেখে আমার ধোনটা যে কখন আবার শক্ত হয়ে গেছে টের পাইনি। আমি ব্যাটিং করতেছিলাম। ইচ্ছা করে বল ওই বারান্দায় পাঠালাম। তারপর নিজেই বল আনতে গেলাম। আন্টি তখন বুকের উপর শাড়িটা দিয়ে তার ভেজা শাড়িটা মেলে দিচ্ছিলেন। আমি তখন অমিকে বললাম যে তুমি একা একা খেলতে থাক আমি একটু ফ্যানের বাতাস খেয়ে আসি। এই বলে উনার বেডরুমে গেলাম। যেয়ে ঘামা গায়ে অপেক্ষা করতে থাকলাম কখন আন্টি আসে এই অপেক্ষায়। ২ মিনিটের মধ্যেই আন্টি চলে আসল। আমি টেবিলে হেলান দিয়ে বাতাস খাচ্ছিলাম। আন্টি আমাকে ছোট মনে করে কোনরুপ পর্দা না করে শাড়িটা বুক থেকে সরালেন। আমি আবার তার বুক দেখতে লাগলাম। আন্টি এবার তার ব্রা টা বের করলেন। আমি খুব নরমাল থাকার চেস্টা করতেছিলাম। কিন্তু তার খোলা দুধ দেখে আমার সরল দোলক স্প্রিং দোলকে রুপান্তরিত হল। কিন্তু আমার ওইদিকে খেয়াল ছিল না। হঠাৎ করে আন্টি দেখে ফেললেন। দেখেই তার মুখটা একটু change হয়ে গেল। উনি আনমনেই তার দুধ দুইটা ঢেকে ফেললেন তার দুই হাত দিয়ে। আমিও একটু লজ্জা পেলাম। তারপর উনি আবার হাত সরিয়ে ফেললেন, বুঝলেন আমি সব উপভোগ করতেছি। এতক্ষণ আমি উনাকে নিয়ে আমার সপ্নের রাজ্যে খেলতেছিলাম আর এবার উনি আমাকে নিয়ে বাস্তবে খেলা শুরু করলেন। বাংলা চটি

উনি তার ব্রা টা বুকের উপর রাখলেন, রেখে ইচ্ছা করে আমাকে দেখালেন যে ওইটার হুক উনি লাগাতে পারতেছেন না। আমাকে বললেন,

সায়মন, একটু হুকটা লাগিয়ে দিতে পারবে?

আমিঃ হু-উ-উ, পারব আন্টি।
আন্টি উল্টা ঘুরলেন। বললেন,

দাও, লাগিয়ে দাও, তাইলে। আমি ব্রা এর দুই পাশ ধরতেই উনি একটু হামাগুরি দিয়ে বিছানার উপর হাত রাখলেন আর তাতে যা হল, আমার ধোনটা তার পাছার ফাকে যেয়ে গুতা দিল। আন্টি ইচ্ছা করে আরো বাঁকা হলেন। আমি আরো কাছে চলে আসতে বাধ্য হলাম। হঠাৎ করে আন্টি বলে উঠলেন,

এই, কি করছ, আমার পাছা থেকে তোমার আংগুল সরাও।

আমি এই কথা শুনে থতমত খেয়ে গেলাম। বাংলা চটি

কি করব বুঝে উঠার আগেই উনি নিজেই বললেন, তোমার দুই হাত দিয়ে তো আমার ব্রা ধরা আছে, তাইলে আর একটা হাত কোথা থেকে আসল?

আমি লজ্জা পেয়ে গেলাম। আন্টি মনে হয় এইটাই চাচ্ছিল। উনি খপাৎ করে আমার সেই তিন নম্বর হাতটা ধরে ফেললেন।

আমি একটু ভয় পেয়ে গেলাম। এখন আমাকে বকাবকি করবে হয়ত। হয়ত বা মারবে। কি করব কিছুতেই বুঝে উঠতে পারতেছিলাম না। এদিকে নরম ও গরম হাতের স্পর্শ পেয়ে আমার ধোন আরো বড় হতে লাগল। আন্টিও আমার ধোন ধরে আমার দিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে থাকলেন। আমি তার মুখের দিকে তাকানোর সাহস পাচ্ছি না। বুকের আধখোলা ব্রা এর দিকে তাকিয়ে আছি।

আন্টি বললেনঃ তুমি যে এত বড় হয়ে গেছ আমি ত খেয়ালই করিনাই কখোনা।

এই বলে আমার মাথার চুলে একটা বিলি কেটে দিলেন। আমার ভয় অনেকখানি কেটে গেল। এরপর তিনি আমার মাথাটা তার বুকের মধ্যে টেনে নিলেন। তার নরম বুকের গরম ছোয়া পেয়ে আমার ভয় সম্পুর্ণ কেটে গেল। আমিও তাকে শক্ত ভাবে জড়িয়ে ধরলাম। এক হাত পিঠে আর এক হাত automatically পাছায় চলে গেল। উনি আমার চেয়ে একটু লম্বা ছিলেন। আমার উচ্চতা ছিল ৫ ফুট ২ ইঞ্চি আর উনার ছিল ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি। আমাকেও উনি বুকের মধ্যে ভাল করেই জড়িয়ে ধরলেন। আস্তে আস্তে উনার দুই হাত আমার পাছায় যেয়ে থামল। উনি আমার পাছাটা নিজের দিকে চেপে ধরলেন। আমি স্পস্ট বুঝতে পারলাম উনি আমার ধোনের গুতা খেতে চান। আমার হাত যখন তার পাছায় গেল আর আমি যখন হাত বুলাতে শুরু করলাম উনি তখন আমাকে ছেড়ে দিলেন, আর বললেন, “ওরে দুস্টু, ভালই দেখি পেকে গেছ, আমার পাছায় হাত দিচ্ছ কেন?”। তারপর কথাবার্তা অনেকটা এরকম।

আমিঃ না, মানে আন্টি, আমি আসলে হাতটা কোথায় রাখব ঠিক বুঝে উঠতে পারছিলাম না।

আন্টিঃ তাই বলে আমার পাছায় হাত দিবে?

আমিঃ তাইলে কোথায় হাত দেয়া উচিৎ ছিল?

আন্টিঃ কেন, আমার পিঠেও তো হাত রাখতে পারতা, তাইনা?

আমিঃ হু-উ-উ, তা রাখতে পারতাম, আর তাই তো রেখেছিলাম। কিন্তু……..

আন্টিঃ কিন্তু আবার কি? বাংলা চটি

আমিঃ কিন্তু আপনি যখন আমার পাছায় হাত দিলেন আমি ভাবলাম আমারও দেয়া উচিৎ।

আন্টিঃ ও, আমি যা করব, তুমিও তাই করবা, তাইনা??

আমিঃ না, তা ঠিক না, আমি মনে করলাম, এমন করলেই মনে হয় আপনি খুশি হবেন।

আন্টিঃ হ্যা, বাবা, আমি খুব খুশি হইছি, এখন একটা কথা বলত।

আমিঃ কি, আন্টি?

আন্টিঃ তোমার ওটা দিয়ে কি কিছু বের হয়?

আমি মাথা নিচু করে বলি, হু – উ – উ। বাংলা চটি

ওয়াও, তাইলে তো খুবই ভাল। মনে মনে হয়ত বললেন, “ওইটাই তো আমার চাই”,

উনি বললেনঃ শোন, তুমি এখানে বস। আমি একটু অমি কে দেখে আসি কি করতেছে।

আমি বসলাম। উনি অমিকে গিয়ে বললেন, যাও, সায়মন ভাইয়াদের বাসায় যেয়ে টিভি দেখ গিয়ে, আমাকে ডেকে বললেন, তুমি ওকে নিয়ে গিয়ে টিভির সামনে বসিয়ে দিয়েই চলে এস। আমি কিন্তু তোমার জন্যে অপেক্ষা করব। আমি অমিকে নিয়ে গেলাম, আমাদের বাসায়। টিভিটা অন করে কার্টুন চ্যানেল দিয়ে ওকে বসিয়ে বললাম। আমি একটু পর আসতেছি। তুমি কার্টুন দেখতে থাক। এই বলে আন্টির বাসায় চলে আসলাম। আন্টির রুমে এসে দেখি আন্টি ব্লাউজ পড়ে

ফেলছে। শাড়িটাও পরা প্রায় হয়ে গেছে। আমার দেখে তো মনটা খুব খারাপ হয়ে গেল। ধুর, কেনযে আন্টিকে ছেড়ে চলে আসলাম। আন্টি আমাকে দেখেই একটা হাসি দিল। আমিও প্রতুত্তরে হাসি দিলাম। কিন্তু আমারটা অনেক শুকনো হল। আন্টি মনে হয় দেখেই বুঝতে পারলেন। আমার কাছে এসে আমার কাঁধে হাত রেখে জড়িয়ে ধরলেন। বললেন, কি ব্যাপার, মন খারাপ নাকি?

আমিঃ না, তেমন কিছু না।

আন্টিঃ শোন, তুমি আজকে যা দেখেছ তা কাউকে কখনো বলনা। যদি বল, তাইলে কিন্তু আমাদের মান ইজ্জত কিছুই থাকবেনা। তোমার কোন friend কেউ বলতে পারবেনা। কি, ঠিক আছে?

আমিঃ ok, আন্টি। আমি কাউকে বলবো না, কিন্তু এই না বলার জন্যে কি আমি কিছু পাব?

আন্টিঃ তুমি কিছু পাবে কিনা জানিনা, কিন্তু তার আগে আমার কিছু প্রশ্নের জবাব দাও।

আমিঃ আচ্ছা, বলেন।

আন্টিঃ তোমার বীর্যের রঙ কেমন?

আমি ভ্যাবাচাকা খেয়ে গেলাম। বললাম, মানে??

আন্টিঃ মানে, ওইটা কি পানির মতন নাকি সাদা দইয়ের মতন ঘন?

আমিঃ দইয়ের মতন অতোটা ঘন না, কিন্তু পানির মতন ও না। পানির মতন আগে ছিল, কিন্তু এখন অনেক গাঢ় হইছে।

আন্টিঃ তাইলে তো তোমাকে দিয়ে হবে কিনা বুঝতেছিনা।

আমিঃ (আমি কিছুই বুঝতেছিলাম না, বললাম) কেন?

আন্টিঃ বীর্য যদি ঘন না হয় তাইলে তো তোমার ওইটা দিয়ে বাচ্চা হবে না এখনি। আর আমার একটা বাচ্চা নেওয়ার শখ তোমার কাছ থেকে বহুদিন ধরেই। এইজন্যে। তবে আমরা চেস্টা করে দেখতে পারি। তুমি কি আমাকে একটা বাচ্চা দিবে?

আমিঃ বাচ্চা দিতে হলে তো আমাদের sex করতে হবে। বাংলা চটি

আন্টিঃ হ্যা, তা তো করতে হবেই, তুমি আমাকে একটা বাচ্চা দিবে, আর তার বদলে যতদিন ইচ্ছা আমার সাথে sex করতে পারবে। কিন্তু, ওই বাচ্চার কথা আর কাউকে বলতে পারবে না।

আমিঃ আপনার সাথে করতে পারব এটা জেনে খুব ভাল লাগছে কিন্তু এইটা তো অবৈধ বাচ্চা হবে। আপনার খারাপ লাগবে না তাতে?

আন্টিঃ শোন, এতকিছু জেনে তোমার কোন কাজ নেই, তুমি শুধু রাজি আছ কিনা সেইটা বল।

আমিঃ আপনার কোন সমস্যা না থাকলে আমার আর কি।

আন্টিঃ আর এ কথা কোনদিন কাউকে বলবে না। এটাই হল শর্ত।

আমিঃ আচ্ছা আমি রাজি।

আন্টিঃ চল, তাইলে দেখি তুমি কেমন বাচ্চা দিতে পার।

চলুন আন্টি।

আন্টি আমাকে জড়িয়ে ধরলেন আর বললেন, এর আগে কি কখন করেছ?

– নাহ, আমি কখন কোন মেয়ের যোনিই দেখিনি আর করা তো দূরের কথা।

– Good, আমি তাইলে তোমাকে সব শিখিয়ে দিচ্ছি। শোন, তোমার যখন বের হওয়ার সময় হবে আমাকে বলবে।

– কেন?

– কারন ওইটার এক ফোটাও আমি বাইরে ফেলতে দিতে চাই না। নাও, এখন থেকে এক ঘন্টার মতন সময় আছে। এর মধ্যে যা করার করতে হবে, তোমার আংকেল চলে আসবে আবার। আমার শরীরটা আগামী এক ঘন্টার জন্যে পুরোপুরি তোমার। তুমি যেখানে খুশি হাত দাও, যা খুশি তাই কর আমার সাথে,

– সত্যি?

– হু, সত্যি।

এই বলে উনি বিছানার উপর শুয়ে পড়লেন।

আমি তখন তার পাশে বসলাম। বসে উনার বুক থেকে আচলটা টেনে সরিয়ে দিলাম। উনার বুক আমার সামনে উন্মুক্ত হল। আমি বুকের উপর চুমু খেলাম। ব্লাউজের একটা একটা করে হুক খুললাম। ব্রা খোলার সময় উনি একটু উঠে নিজেই পিছনে হাত দিয়ে খুলে দিলেন। আমার সামনে উনার নগ্ন বুক, আমি বললামঃ চুসব?

ei golper second part porun ekhane …

Leave a Reply